খাঁটি মধু কোথায় পাব?

Organic Honey

খাঁটি মধু কোথায় পাব? বা খাঁটি মধু কোথায় পাওয়া যাবে ? এইটা নিয়ে আপনি হয়তো অনলাইনে অনেক সার্চ করেছেন অথবা বিভিন্ন দোকানপাট ঘুরে ঘুরে বেড়িয়েছেন।
কিন্তু মনের মতো ভালো কোনো অথেনটিক সোর্স খুঁজে পাচ্ছেন না, যেখান থেকে আপনি প্রশান্ত মন নিয়ে শতভাগ আস্থা রেখে খাঁটি মধু কিনতে পারেন।
আলহামদুলিল্লাহ্‌। এইটা নিয়ে আর কোন চিন্তা করতে হবে না ইনশাআল্লাহ্‌। কারণ, আশা করি আপনি সঠিক জায়গায় চলে এসেছেন।

খাঁটি মধু কিনুন । মোবাইল নাম্বারঃ 01986379462 / 01724514097

নিশ্চিন্তে ক্রয় করুন শতভাগ খাঁটি মধু

আলহামদুলিল্লাহ্‌। আপনারা আমাদের কাছে পাবেন বাংলাদেশের বিভিন্ন অঞ্চলের বিভিন্ন প্রকারের মধু ইনশাআল্লাহ্‌।
বাংলাদেশে বিভিন্ন প্রকারের মধু পাওয়া যায়। যেমন: সুন্দরবনের মধু , সরিষা ফুলের মধু , বরই ফুলের মধু , জলপাই ফুলের মধু , কালোজিরা ফুলের মধু , লিচু ফুলের মধু ইত্যাদি।
কিন্তু আমাদের পক্ষে সর্ব প্রকার মধু সংগ্রহ করা সম্ভব হয়ে উঠে না। তাই চেষ্টা করছি নিজেদের সাদ্ধের ভেতর মধুর কুয়ালিটি ঠিক রেখে কয়েকটি জনপ্রিয় মধু বিক্রি করতে।

সর্বদা আমাদের কাছে যে ক্যাটাগরির মধু পাবেন 👇
কালোজিরা ফুলের মধু
সরিষা ফুলের মধুর
লিচু ফুলের মধু
আমাদের কাছে এই ক্যাটাগরির মধু ছাড়াও আরো বিভিন্ন ক্যাটাগরির মধু পেতে পারেন। তার জন্য আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন।

যোগাযোগের জন্য কল করুন
মোবাইল নাম্বারঃ 01986379462 / 01724514097


মধুর গুনাগুণ বা উপকারিতা

আলহামদুলিল্লাহ্‌। মধুর গুন গেয়ে যেমন শেষ করা যাবেনা। তেমনি মধুর উপকারিতা সম্পর্কে লিখেও শেষ করা যাবেনা। আমরা বিভিন্ন ওয়েবসাইট ও ব্লগ এ মধুর গুনাগুণ ও উপকারিতা সম্পর্কে বিভিন্ন পোষ্ট দেখতে পাই। অথাৎ মধুর গুনাগুণ ও উপকারিতা সম্পর্কে আমরা সবাই কম বেশি জানি।
তবুও মধুর গুনাগুণ ও উপকারিতা সম্পর্কে আমি কিছু তথ্য উল্লেখ করছি।

মধু মানুষের জন্য আল্লাহ প্রদত্ত এক অপূর্ব নেয়ামত। স্বাস্থ্য সুরক্ষা এবং যাবতীয় রোগ নিরাময়ে মধুর গুণ অপরিসীম। রাসূলুল্লাহ (সা.) একে ‘খাইরুদ্দাওয়া’ বা মহৌষধ বলেছেন। আয়ুর্বেদ এবং ইউনানি চিকিৎসা শাস্ত্রেও মধুকে বলা হয় মহৌষধ।
এটা যেমন বলকারক, সুস্বাদু ও উত্তম উপাদেয় খাদ্যনির্যাস, তেমনি নিরাময়ের ব্যবস্থাপত্রও। আর তাই তো খাদ্য ও ওষুধ এ উভয়বিধ পুষ্টিগুণে সমৃদ্ধ নির্যাসকে প্রাচীনকাল থেকেই পারিবারিকভাবে ‘পুষ্টিকর ও শক্তিবর্ধক’ পানীয় হিসেবে সব দেশের সব পর্যায়ের মানুষ অত্যন্ত আগ্রহ সহকারে ব্যবহার করে আসছে।


কুরআন ও হাদীস অনুযায়ী মধুর উপকারিতা

প্রিয়নবী (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) বলেন, ‘মধুতে আরোগ্য নিহিত আছে।’(সহীহ বুখারি: ৫২৪৮)।
রাসূলুল্লাহ (সা.) একে ‘খাইরুদ্দাওয়া’ বা মহৌষধ বলেছেন।
রাসুল (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) বলেন, ‘যে ব্যক্তি প্রতি মাসে তিন দিন সকালে মধু চেটে খাবে, তার বড় ধরনের কোনো রোগ হবে না।’(ইবনে মাজাহ : ৩৪৪১)।
রাসুল (সা.)-এর কাছে এক সাহাবি এসে তাঁর ভাইয়ের পেটের অসুখের কথা বললে রাসুল (সা.) তাকে মধু পান করানোর পরামর্শ দেন এবং এতে সে সুস্থ হয়ে ওঠে। (বুখারি, আস-সহিহ, খ. ৫, পৃ. ২১৫২, হাদিস : ৫৩৬০)।

মধু ক্রয়ের জন্য যোগাযোগ করুন: 01986379462 / 01724514097


নিয়মিত ও পরিমিত মধু সেবন করলে কি হয়?

নিয়মিত ও পরিমিত মধু সেবন করলে যেসব উপকার পাওয়া যায়। তা হলো-
১.রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে
২.যৌন শক্তি বৃদ্ধি করে
৩.যারা রক্ত স্বল্পতায় বেশি ভোগে বিশেষ করে মহিলারা, তাদের জন্য নিয়মিত মধু সেবন অত্যন্ত ফলদায়ক
৪.মধুর ক্যালরি রক্তের হিমোগ্লোবিনের পরিমাণ বাড়ায়, ফলে রক্তবর্ধক হয়
৫.পাকস্থলীর বিভিন্ন রোগের উপকার পাওয়া যায়
৬.আলসার ও গ্যাস্ট্রিক রোগের জন্য উপকারী
৭.দুর্বল শিশুদের মুখের ভেতর পচনশীল ঘায়ের জন্য খুবই উপকারী
৮.মধু কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে
৯. ক্ষুধা, হজমশক্তি ও রুচি বৃদ্ধি করে
১০.জিহ্বার জড়তা দূর করে
১১.শিশুদের দৈহিক গড়ন ও ওজন বৃদ্ধি করে
১২.গলা ব্যথা, কাশি-হাঁপানি এবং ঠাণ্ডা জনিত রোগে বিশেষ উপকার করে
১৩.শিশুদের প্রতিদিন অল্প পরিমাণ মধু খাওয়ার অভ্যাস করলে তার ঠাণ্ডা, সর্দি-কাশি, জ্বর ইত্যাদি সহজে হয় না
১৪.শারীরিক দুর্বলতা দূর করে এবং শক্তি-সামর্থ্য দীর্ঘস্থায়ী করে
১৫.মধু খাওয়ার ফলে শরীরের তাপমাত্রা বৃদ্ধি করে, ফলে শরীর হয়ে উঠে সুস্থ, সতেজ এবং কর্মক্ষম
১৬.মধুর রয়েছে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ক্ষমতা, যা দেহকে নানা ঘাত-প্রতিঘাতের হাত থেকে রক্ষা করে ইত্যাদি।
তাই নিয়মিত মধু সেবন করুন এবং সুস্থ থাকুন।

মধু অর্ডার করতে আমাদের সাথে সরাসরি ফোন এ কথা বলতে পারেন।
মোবাইল নাম্বারঃ 01986379462 / 01724514097


খাঁটি মধু চেনার উপায় কি?

খাঁটি মধু চেনার উপায়:
1.একটি মোমবাতি নিয়ে সেটির সলতেটি ভালভাবে মধুতে ডুবিয়ে নিন। এবার আগুন দিয়ে জ্বালাবার চেষ্টা করুন। যদি জ্বলে ওঠে, তাহলে বুঝবেন যে মধু খাঁটি। আর যদি না জ্বলে, বুঝবেন যে মধুতে জল মেশানো আছে।
২. এক গ্লাস পানিতে এক চামচ পরিমাণ মধু দিন। তারপর আস্তে আস্তে গ্লাসটি নাড়া দিন। মধু পানির সঙ্গে মিশে গেলে নিশ্চিত হবেন সেটা ভেজাল মধু। আর মধু যদি ছোট পিণ্ডের মতো গ্লাসের পানিতে ছড়িয়ে যায়, তাহলে বুঝবেন সেটা খাঁটি মধু।
৩. এক টুকরো ব্লটিং পেপার নিন, তাতে কয়েক ফোঁটা মধু দিন। যদি কাগজ তা সম্পূর্ণ শুষে নেয়, বুঝবেন মধুটি খাঁটি নয় ইত্যাদি।

আমরা বিভিন্ন ওয়েবসাইট ও ব্লগ এ এই ধরনের বিভিন্ন পরীক্ষা পদ্ধতি দেখতে পাই কিন্তু সত্যি বলতে এসব পরীক্ষার মাধ্যমে খাঁটি মধু চেনা সম্ভব হয়ে উঠে না। এখন হয়তো প্রশ্ন করবেন যে, তাহলে কিভাবে খাঁটি মধু চিনবো?

আামি অপনাদেরকে বলে দিচ্ছি কিভাবে খাঁটি মধু চিনবেন। অমরা জানি যে, খাঁটি মধু ফ্রিজে রাখলে জমে না কিন্তু কথাটি সঠিক নয়। অনেক খাঁটি মধু আছে যে গুলো ফ্রিজে রাখলে জমে যায়। তাই আপনাকে বলছি আপনি নিজে আগে মধু সর্ম্পকে জানুন। বাংলাদেশে বিভিন্ন ক্যাটাগরির মধু রয়েছে।
যেমন: সুন্দরবনের মধু , সরিষা ফুলের মধু , বরই ফুলের মধু , জলপাই ফুলের মধু , কালোজিরা ফুলের মধু , লিচু ফুলের মধু ইত্যাদি।

মধুর স্বাদ-গন্ধঃ মধু যেমন বিভিন্ন প্রকার তেমনি প্রত্যেক মধুরই আলাদা আলাদা স্বাদ আছে। কোন মধু একটু বেশি মিষ্টি লাগে আবার কোন মধু একটু কম মিষ্টি।
কোন কোন মধু খাওয়ার শেষে অনেক সময় হালকা তেতো মত লাগে যেমনঃ লিচু ফুলের মধু। তবে মনে রাখবেন এই তেতো সেই নিমপাতার মত তেতো না।
আবার কোন কোন মধু অনেকের কাছে খাওয়ার সময় গুড় গুড় ভাব লাগে যেমনঃ কালোজিরা ফুলের মধু। তবে সবার কাছে এমন লাগে না। আরেকটা কথা বলে রাখি। বাংলাদেশের সবচেয়ে গুণসম্পন্ন মধু কিন্তু এই কালোজিরা ফুলের মধুই।

মধুর রং ও ঘনত্বঃ মধুর রং ও ঘনত্ব সম্পর্কে স্পেসিপিক ভাবে বলাটা খুবই কঠিন। কারণ একেক সময়ের মধুর রং ও ঘনত্ব একেক রকম হয়। কোন মধুর রং গাড় লাল অথবা সোনালি কালারের মত দেখা যায়। আবার কোনটা একেবারেই হালকা টাইপের। তাই এটি নির্ভর করবে মধুর উপরেই।
অপরদিকে মধুর ঘনত্ব এর ব্যাপার টাও একি রকম। একেক সময় একের রকম ঘনত্ব। কোন মধু খুব গাড় হয়। আবার কোন মধু কম গাড়। তাই এটিও নির্ভর করবে মধুর উপরেই।

কোন মধুর কিরকম স্বাদ, গন্ধ, রং ও ঘনত্ব রয়েছে সেটা আপনাকে বিশ্লেষণ করে বের করতে হবে। অন্যথায় আপনাকে কোন অভিজ্ঞ ব্যক্তির সাহায্য নিতে হবে যে কিনা খাঁটি মধু এবং ভেজাল মধুর পার্থক্য বুজতে পারে।

আমরা চেষ্টা করছি বিভিন্ন ট্রান্সপোর্ট এর মাধ্যমে বাংলাদেশের আনাচে কানাচে কাঙ্ক্ষিত সেই ক্রেতাদের নিকট নির্ভেজাল পণ্য পৈীছে দিতে।

মধু অর্ডার করতে আমাদের সাথে সরাসরি ফোন এ কথা বলতে পারেন।
মোবাইল নাম্বারঃ 01986379462 / 01724514097

উপসংহার
আজ এই পর্যন্তই। আবার আগামি পোষ্ট এ দেখা হবে ইনশাল্লাহ। আপনাদের প্রত্যেকের জন্যই আমার অন্তর থেকে দুয়া রইল।
আল্লাহ্‌ তায়ালা যেন আমাকে শতভাগ খাঁটি মধু বিক্রি করার তাওফিক দান করেন এবং আপনারাও যেন শতভাগ খাঁটি মধু ক্রয় করে উপকৃত হতে পারেন।
এতক্ষণ সাথে থাকার জন্য “জাঝাকাল্লাহু খইরন”।